স্কুল কবে খুলবে

স্কুল খুলবে কবে জানে না কেউ!

স্কুল কবে খুলবে এটিই বাংলাদেশের মানুষের অন্যতম প্রধান প্রশ্ন। করোনার কারণে গেল বছর স্কুল বন্ধ হয়েছে তারও এক বছর হতে চলল কিন্তু স্কুল খোলার কোন নামগন্ধ নেই। স্কুল না খোলায় শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার ব্যাপারে উদ্বিগ্ন অভিবাবকেরা। স্কুল বন্ধের কারণে অনেক শিক্ষার্থী ঝড়ে পড়বে বলে আশঙ্গা প্রকাশ করছে শিক্ষাবিশারদেরা।

স্কুল কবে খুলবে জানে না কেউ

গেল বছর স্কুল বন্ধ হলে করোনা আতঙ্গে দিন কেটেছে সাধারণ মানুষের। ফলে তাদের শিক্ষা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করতে দেখা যায়নি। তখন মানুষের ডাল আনতে নুন ফুরোবার অবস্থা। বর্তমানে করোনার প্রকোপ কমে এসছে। ফলে মানুষের মনে ঘুরে ফিরে সেই একই প্রশ্ন স্কুল কবে খুলবে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নেটিজেনা এ বিষয়ে ব্যাঙ্গ করা শুরু করেছেন।

স্কুল কলেজ কবে খুলবে জানতে চান শিক্ষকরাও

করোনার কারণে অনেকের দৃশ্যমান ক্ষতি পরিলক্ষিত হলেও পর্দার আড়ালে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন স্কুলশিক্ষকেরা। অনেক বেসরাকারী স্কুলের শিক্ষকেরা রীতিমত মানবেতর জীবনযাপন করছেন। স্কুল না খোলার কারণে অনেকেই শিক্ষকতা পেশা ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।  পেশা পরিবর্তন করে অনেকেই বিকল্প কাজে যুক্ত হয়ে গেছেন।

শিশুদের মনে নেতিবাচক প্রভাব

গবেষকরা বলছেন স্কুলে যাওয়ার মাধ্যমে একটা বাচ্চা পড়ালেখার পাশাপাশি সামাজিকতা শেখে। কিন্তু করোনার কারণে এই বছর বাচ্চারা সেই সুযোগটি পেল না। তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোতে বিশেস করে বাংলাদেশে স্কুল বন্ধের কারণে শত শত শিক্ষার্থী ঝড়ে পড়বে। ক্ষতি হবে সামগ্রিক শিক্ষা ব্যবস্থার।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত নিয়ে কি ভাবছে সরকার?

স্কুল খোলার ব্যাপারে বাংলাদেশ সরকারের কাছ থেকে এখনো কোন সিদ্ধান্ত আসেনি। শীতকালে করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ার আশাংকায় কয়েক মেয়াদে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়িয়েছে সরকার। বর্তমানে স্কুল খোলার সিদ্ধান্ত নিয়ে সরকার কিছু ভাবছে না বলে উচ্চপর্যায় থেকে জানা যাচ্ছে।

অনলাইনে চলবে শিক্ষা কার্যক্রম

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হওয়ার কয়েক মাস পর থেকেই বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতন বাংলাদেশেও অনলাইনে শিক্ষাকার্যক্রম শুরু হয়। কিন্তু শিক্ষার্থীদের আর্থিক অসঙ্গতি ও ইন্টারনেটের অপ্রতুলতার কারণে অনলাইন ক্লাসও ভালভাবে করা যায়নি। শেষ দিকে এসে তড়িঘড়ি করে এসাইনমেন্ট দিয়ে তাদের মূল্যায়ন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

ধাপে ধাপে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়লো

স্কুল শুরুতে কয়েক মাসের জন্যে বন্ধ দেওয়া হলেও করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ার পর থেকে ধাপে ধাপে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়তে থাকে। অন্যদিকে স্কুল-কলেজ ও সরকারী বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকলেও বেরসকারী বিশ্ববিদ্যালয়গুলো অনলাইনে নিয়মিত পাঠদান চালিয়ে গেছে। এমনকি এরমধ্যেই অনলাইনে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত আসতে কত দেরী?

স্কুল কবে খুলবে এই প্রশ্নের শেষ কোথায় আমরা জানি না। এই বন্ধের মধ্যে শিক্ষার্থীদের যে কাজগুলো শেখাতে পারেন।

 

  • নতুন কোন ভাষা
  • ছবি আঁকা
  • সিনেমা দেখার অভ্যাস
  • আবৃত্তি
  • গান চর্চা
  • পিয়ানা বাজানো
  • ধর্মচর্চা
  • ইউটিউবিং

করোনার এই প্রকোপে বিশ্বব্যাপী যে দুর্ভোগ নেমে এসেছে তার শিকার আমরাও।  সেই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে চাইলেই ঘরে বসে আমরা শিক্ষার্থীদের নানা দক্ষতা শেখাাতে পার।

  • নতুন কোন ভাষা : আনপার সন্তানকে ছোট বয়স থেকেই নতুন কোন ভাষা শেখাতে পারেন। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের এই সুযোগে তাকে পরিচয় করিয়ে দিতে পারেন নতুন কোন ভাষার সাথে। এভাবেই সে নতুন জগতকে জানতে শিখবে।
  • ছবি আঁকা : বাচ্চাদের ছবি আঁকা শেখানের জন্যে ইউটিউবে বিভিন্ন চ্যানেল রয়েছে। সেগুলো দেখেই বাচ্চারা ছবি আঁকার সাথে পরিচিত হতে পারবে।
  • সিনেমা দেখার অভ্যাস : শিশুদের বিশ্বসাহিত্যের সাথে পরিচয় করিয়ে দিতে সিনেমার জুড়ি মেলা ভার। বিশেষ করে ইরানী সিনেমাসহ বিশ্বের জনপ্রিয় সিনেমাগুলোর প্লে লিস্ট শেষ করতে পারেন এই বন্ধের মধ্যেই।
  • আবৃত্তি : আবৃত্তি চর্চার জন্যে এ সময়টা খুব কাজে লাগতে পারে। অনলাইনে বিভিন্ন কোর্স আছে আবৃত্তির উপর। বইও চাইলে উপহার দিতে পারেন।
  • গান চর্চা : শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা থাকলে ব্যস্ততার জন্যে অনেকের গানের চর্চা হয় না। তো হয়ে যাক গানের ঝালাই।
  • পিয়ানা বাজানো
  • ধর্মচর্চা :  এই বন্দী সময়টা কাটানো যেতে পারে স্রষ্ট্রাকে জানার পেছনে সময় দিয়ে। প্রত্যেকেই নিজ নিজ ধর্মের বিধানগুলো জেনে নিতে পারে।
  • ইউটিউবিং : ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের এই যুগে ইউটিউবের জনপ্রিয়তা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। সেখানে আছে নিজেকে তুলে ধরার সুযোগ। ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে শিক্ষার্থীরা চাইলে ইউটিউবিংয়ে মনোযোগ দিতে পারে।

এছাড়ও বাচ্চার আগ্রহের সাথে যায় এমন আরো অনেক কিছুই করতে পারেন। পুুরোনো পড়ালেখাগুলো ঝালিয়ে নিতে পারেন। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার পরে বাচ্চার যাতে অসুবিধা না হয় সেভাবে প্রস্তুতি দিয়ে গড়ে তুলতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
x
Close